নরসিংদীতে স্কুলছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার ভিডিও ভাইরাল, আটক ৩

News & Event Viral News

মেঘনা নদীবেষ্টিত চরাঞ্চল নরসিংদীর কালাইগোবিন্দপুর গ্রামে দশম শ্রেণির স্কুলছাত্র ফারহান আহমেদ ওরফে অনিককে (১৫) বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে শত শত মানুষের সামনে সহপাঠীরা পিটিয়ে হত্যা করেছে। ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে এলাকাজুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

 

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে সদর উপজেলার নাগরিয়াকান্দি এলাকায় ঈদ উপলক্ষে মেঘনা নদীতে অনিককে পিটিয়ে হত্যা করে বন্ধুরা। এ ঘটনায় পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে। ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায়- লাঠি, বাঁশ ও কাঠ নিয়ে মারামারি চলছে। নদীতে এক কিশোরের মাথায় সজোরে কাঠ দিয়ে আঘাত করতে দেখা যায়।

মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সোমবার সদর উপজেলার নাগরিয়াকান্দি এলাকায় শেখ হাসিনা সেতুতে বেড়াতে যায় কালাইগোবিন্দপুর এলাকার শহিদুল্লাহ মিয়ার ছেলে ও সাটিরপাড়া কালিকুমার উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র অনিক।

এ সময় দড়ি নবীপুর গ্রামের আজিজুল, শ্রাবণ, আরিফ ও মাইন উদ্দিনের সঙ্গে অনিকের ঝগড়া হয়। পরে আশপাশের লোকজন তাদেরকে থামিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। এ ঘটনার একদিন পর আজিজুল, শ্রাবণ, আরিফ ও মাইন উদ্দিন, ইয়াসিন, সাগর বাদশা নৌকাযোগে পিকনিক করতে নাগরিয়াকান্দি এলাকায় শেখ হাসিনা সেতুতে আসে।

বিকাল ৪টার দিকে অনিকের বন্ধু আরিফ তাকে ফোন করে ব্রিজে আসতে বলে। তাদের মধ্যে মনোমালিন্য সমাধান করা হবে বলে আশ্বাস দেয়। অনিক সেখানে যাওয়ার পরই ওঁৎ পেতে থাকা আরিফ ও তার বন্ধুরা মিলে তাকে নৌকার কাঠ দিয়ে পেটাতে থাকে।

একপর্যায়ে তার মাথায় সজোরে আঘাত করে। পরে অনিককে পানিতে ডুবিয়ে দেয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ অনিকের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ সদর হাসপাতালে পাঠায়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা ৭ জনের নাম উল্লেখ করে সদর মডেল থানায় হত্যা মামলা করেন।

এদিকে সন্তান হারিয়ে বাকরুদ্ধ নিহতের মা-বাবা ও স্বজনরা। অনিককে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন নিহতের বাবা শহিদুল্লাহ মিয়া। তিনি বলেন, অনিককে তারা কুকুরের মতো পিটিয়ে হত্যা করেছে।

ছেলেকে হারিয়ে সংজ্ঞাহীন নিহতের মা রোজিনা বেগম। তিনি ছেলের হত্যাকারীদের বিচার চেয়েছেন। নরসিংদী সদর মডেল থানার ওসি বিপ্লব কুমার দত্ত বলেন, তদন্তের স্বার্থে আটককৃতদের নাম প্রকাশ করা যাচ্ছে না।

সূত্রঃ https://www.jugantor.com/m/todays-paper/first-page/332010/%E0%A6%A8%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%82%E0%A6%A6%E0%A7%80%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%95%E0%A7%81%E0%A6%B2%E0%A6%9B%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%AA%E0%A6%BF%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%B9%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%AD%E0%A6%BF%E0%A6%A1%E0%A6%BF%E0%A6%93-%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%86%E0%A6%9F%E0%A6%95-%E0%A7%A9

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *